হাইলাকান্দিতে ডিস্ট্রিক্ট রোড সেফটি কমিটির সভায় সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে গুচ্ছ সিদ্ধান্ত গ্রহণ ।

হাইলাকান্দিতে ডিস্ট্রিক্ট রোড সেফটি কমিটির সভায় সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে গুচ্ছ সিদ্ধান্ত গ্রহণ ।

হাইলাকান্দিতে ডিস্ট্রিক্ট রোড সেফটি কমিটির সভায় সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে গুচ্ছ সিদ্ধান্ত গ্রহণ ।

হাইলাকান্দি ডিস্ট্রিক্ট রোড সেফটি কমিটির  এক সভা বৃহস্পতিবার হাইলাকান্দির জেলা উপায়ুক্তের কনফারেন্স হলে অনুস্টিত হয় ।জেলা উপায়ুক্ত রোহন কুমার ঝা র সভাপতিত্বে অনুস্টিত সভায় হাইলাকান্দি জেলায় সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ।জেলা পরিবহন বিভাগ, পুর্ত বিভাগ, পুলিশ বিভাগ,  এন এইচ সড়ক বিভাগ, স্বাস্থ্য বিভাগ, শিক্ষা বিভাগে সহ বিভিন্ন যানবাহন সংস্থার প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে অনুস্টিত সভায়  জেলার  সড়ক দূর্ঘটনা  নিয়ে পর্যালোচনা করা হয় ।

শুরুতে  বিগত দিনে জেলায় সংঘটিত সড়ক দূর্ঘটনার পরিসংখ্যান তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন জেলা পরিবহন আধিকারিক  সৈয়দ রফিকুল মান্নান ।  তিনি জানান,  ২০২১ সালের জানুয়ারি মাস থেকে জুন মাস পর্যন্ত জেলায় মোট ৭৫ টি সড়ক দূর্ঘটনা ঘটেছে এবং ৮৫ জন জখম হয়েছেন। যদিও সভায় পুলিশের ডি এস পি নবনীতা দাস,জানান, জুন মাস পর্যন্ত মোট  ১০৫ টি দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়েছে । জেলা উপায়ুক্ত রোহন কুমার ঝা,  জেলায় সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে পরিবহন বিভাগ, পুর্ত বিভাগ, স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশ বিভাগের মধ্যে কোঅর্ডিনেশন  বৃদ্ধির উপর জোর দিয়ে জেলার পুর্ত  ও জাতীয় সড়কের   দূর্ঘটনা প্রবন এলাকা যৌথভাবে চিহ্নিত করতে  তাদেরকে নির্দেশ দেন । সভায়  এন এইচ সড়ক বিভাগের সহকারী কার্যনির্বাহী বাস্তুকার এ এইচ খান জানান,   হাইলাকান্দি জেলার  জানকীবাজার,  আমালা ও আব্দুল্লাপুর এলাকার দুর্ঘটনাপ্রবন এলাকা চিহ্নিত করে  ব্লেক স্পট  মার্কিং করা হয়েছে ।অনুরূপভাবে জেলার দুর্ঘটনাপ্রবন এলাকা চিহ্নিত করতে  পুর্ত গ্রামীণ বিভাগকেও নির্দেশ দেন জেলা উপায়ুক্ত।সভায় সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে  জেলার স্কুল, কলেজ সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  ব্যাপকভাবে সচেতনতা অভিযান চালানোর জন্য  পরিবহন বিভাগকে পরামর্শ দেন  জেলা উন্নয়ন আধিকারিক রনজিৎ কুমার লস্কর । সভায় জেলা উপায়ুক্ত রোহন কুমার ঝা , সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে লাইসেন্স বিহীন চালক সহ যানবাহন আইন লংঘনকারীদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে এদিনের সভায় পরিবহন বিভাগ ও পুলিশ বিভাগকে নির্দেশ দেন । সভায় জেলা পরিবহন আধিকারিক  সৈয়দ রফিকুল মান্নান  ও এনফোর্সমেন্ট ইনস্পেকটর সরফ উদ্দিন তাপাদার জানান, , ইতিমধ্যে জেলায় ট্রাফিক সুরক্ষা  হট লাইন চালু করে ব্যাপক সুফল পাওয়া গেছে ।জেলার জনগন  ট্রাফিক আইন লংঘনকারী যানবাহনের বিরুদ্ধে ছবি সহ সরাসরি  ৯৯৫৪৫৪৬০১০ হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে  অভিযোগ জানাতে পারেন। তাছাড়া পরিবহন বিভাগের পক্ষ থেকে যানবাহনের  গতি হ্রাস করতে জেলায় স্পিড গান  ডিভাইস চালু করা হয়েছে । জেলার জাতীয় সড়কের বিভিন্ন স্থানে স্পিড গান ডিভাইস সিস্টেম বসিয়ে প্রায় তিনশত টি ওভার স্পিড মামলা নথিভুক্ত করে জরিমানা আদায় করা হয়েছে । গোটা রাজ্যে এপর্যন্ত প্রায় এক হাজার ওভার স্পিড মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে ।

জেলার  ধলেশ্বর থেকে মিজোরাম সীমান্ত পর্যন্ত জাতীয়   জাতীয় সড়কে সড়ক দূর্ঘটনা  প্রতিরোধের জন্য  হাইওয়ে পেট্রলিং চালু করা,  স্থানে স্থানে ট্রাফিক আইন চিহ্ন লাগানোর জন্য পদক্ষেপ  গ্রহণের জন্য সংস্লিস্ট বিভাগ সমূহকে যৌথ ভাবে কাজ করার পরামর্শ দেন জেলা উপায়ুক্ত রোহন কুমার ঝা ।তিনি অটো সহ বিভিন্ন যাত্রীবাহী যানবাহনে অত্যধিক যাত্রী পরিবহন,  অত্যধিক ভাড়া আদায় করার গনঅভিযোগের কথা তুলে ধরে  সবাইকে সতর্ক করে দেন। ডিসি ঝা বলেন,  যাত্রী সাধারনের কাছ থেকে কোন অবস্থায় অত্যধিক ভাড়া আদায় করা চলবে না । পরিবহন আধিকারিকের অনুমোদিত তালিকা অনুযায়ী ভাড়া গ্রহণ করতে যানবাহন সংস্থাকে  নির্দেশ দেন তিনি ।  এদিনের বৈঠকে জেলা উপায়ুক্ত রোহন কুমার ঝা , আঠারো বছরের নীচের এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন চালকদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে পরিবহন বিভাগ ও পুলিশ বিভাগকে নির্দেশ দেন ।
আঠারো বছরের কম বয়সের ইরিক্সা চালকদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করতে নির্দেশ দেন তিনি । ডিসি রোহন ঝা এদিন স্পষ্ট ভাবে জানান, হাইলাকান্দি জেলায় চায়নিজ ইরিক্সা কোন অবস্থায়  চলতে দেওয়া হবে না ।তাছাড়া যে সব ইরিক্সা চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই তাদেরকে আগামী পনের আগস্টের মধ্যে  ডিটিও কার্যালয়ে আবেদন করতে হবে । পনের আগস্টের পর ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কাউকে ইরিক্সা চালাতে দেওয়া হবে না। আঠারো বছরের নীচের চালক,  বিদ্যুৎ চুরি করে ইরিক্সা চার্জ ,  চায়নিজ ইরিক্সা মালিকদের বিরুদ্ধে সরাসরি থানায় এফ আই আর করতে এদিন নির্দেশ দেন জেলা উপায়ুক্ত ।সভায় জানানো হয় , পারিবারিক বৈদ্যুতিক কানেকশনে ইরিক্সা চার্জ দেওয়া যাবে না । কমার্সিয়াল বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে ইরিক্সা চার্জ দিতে হবে ।এদিনের বৈঠকে অন্যদের মধ্যে জেলা উন্নয়ন আধিকারিক রনজিৎ কুমার লস্কর ,  স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষে ডাঃ সুদীপ চক্রবর্তী, শিক্ষা বিভাগের পক্ষে নজমুল হক লস্কর, পুর্ত বিভাগের কার্যনির্বাহী বাস্তুকার আনোয়ার হোসেন মজুমদার, এ এস টি সি বিভাগের কেশব শর্মা,মজুমদার, ডি এস পি নবনীতা দাস  প্রমুখ প্রাসঙ্গিক আলোচনায় অংশ নেন ।

 

LEAVE A COMMENT

Comment