হাইলাকান্দি তে সংক্ষিপ্ত পরিসরে ৬০ তম জাতীয় শিক্ষক দিবস উদযাপিত।

হাইলাকান্দি তে সংক্ষিপ্ত পরিসরে ৬০ তম জাতীয় শিক্ষক দিবস উদযাপিত।

হাইলাকান্দি তে সংক্ষিপ্ত পরিসরে ৬০ তম জাতীয় শিক্ষক দিবস উদযাপিত।

কোরনা আবহে হাইলাকান্দি জেলায় এবছর ও সংক্ষিপ্ত পরিসরে শিক্ষক দিবস উদযাপিত হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য যে স্বাধীন ভারতের দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণন যিনি একজন শিক্ষক থেকে রাষ্ট্রপতির পদে আসীন হয়েছিলেন। উনার জন্মতিথিতে প্রতিবছরই শিক্ষকদের সম্মান জানানোর জন্য জাতীয় শিক্ষক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। এবছর হাইলাকান্দি জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা বিভাগের পক্ষ থেকে হাইলাকান্দি খণ্ড শিক্ষা আধিকারিকের কার্যালয়ে দিবস টি উদযাপন করা হয়। এদিন শিক্ষক দিবসের পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর জেলা উন্নয়ন আয়ুক্ত রঞ্জিত কুমার লস্করের পৌরহিত্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের প্রতিকৃতির সম্মুখে প্রদীপ প্রজ্বলন করেন প্রবীণ শিক্ষাবিদ বিনয় ভূষণ নাথ সহ অন্যান্য আধিকারিক ও শিক্ষক সংস্থার প্রতিনিধি রা।  স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা শিক্ষা বিভাগের উপ পরিদর্শক ইকবাল হোসেন বড়ভূইয়া। তিনি শিক্ষক দিবসের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে নিজের বক্তব্য তুলে ধরেন। এছাড়াও প্রাসঙ্গিক বক্তব্য রাখেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সম্মলনীর জেলা সম্পাদক সৈয়দ আহমেদ লস্কর, এম ভি শিক্ষক সংস্থার সভাপতি সামসুদ্দিন বড়ভূইয়া, এম ই শিক্ষক সংস্থার পক্ষে ইয়াহিয়া লস্কর, হাইস্কুল শিক্ষক সংস্থার সভাপতি মোহাম্মদ আলী মাঝারভূইয়া,মাধ্যমিক শিক্ষক সংস্থার সম্পাদক রাজেশ পাল, হাইয়ার সেকেন্ডারি শিক্ষক সংস্থার সম্পাদক হিফজুর রহমান মজুমদার প্রমুখ শিক্ষক দিবস উপলক্ষে নিজেদের ভাবনা ব্যাক্ত করেন।এর মধ্যে কয়েকজন বক্তা শিক্ষক দিবসে শিক্ষক সংবর্ধনার প্রদান করার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। এছাড়াও সভায় এক খানি স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন হরিচরণ মহামায়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষিকা তথা কবি ঋতা চন্দ। 
মুখ্য বক্তা বিনয় ভূষণ নাথ নিজের বক্তব্যে মূল্যবোধের শিক্ষার উপর জোর দিয়ে শিক্ষক সমাজ কে শিক্ষার বিকাশের উপর আন্তরিক হতে আহ্বান জানান। 
জেলা উন্নয়ন আয়ুক্ত রঞ্জিত কুমার লস্কর নিজের স্কুল জীবনের শিক্ষা গুরুর কথা তুলে ধরে নিজের শিক্ষকতা জীবন সহ বর্তমান সময়ে তিনি যেভাবে দেশের সেবা করার সুযোগ পেয়েছেন তা অত্যন্ত সাবলীল ভাষায় তুলে ধরে শিক্ষক দের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন। ধন্যবাদ সূচক বক্তব্য রাখেন খণ্ড শিক্ষা আধিকারিক রাজেশ চক্রবর্তী। রাজেশ বাবু এদিন কৃতি শিক্ষক দের রাজ্য স্তরে শিক্ষক সম্মাননা পাওয়ার জন্য আবেদন করতে আহ্বান জানান। তাছাড়া জেলা স্তরের সম্মাননা পর্ব একবার ফের চালু হবে বলে আশা ব্যাক্ত করেন। উল্লেখ্য বিগত দুই বছর থেকে জেলা স্তরের কৃতি শিক্ষক সম্মাননা প্রদান বন্ধ রয়েছে।

LEAVE A COMMENT

Comment