ওমেন এমপাওয়ারমেন্টের অপব্যবহার? স্বামীর বিরুদ্ধে অপহরণ ও ধর্ষণের মামলা বিবাহিত স্ত্রী অনুশ্রীর

ওমেন এমপাওয়ারমেন্টের অপব্যবহার? স্বামীর বিরুদ্ধে অপহরণ ও ধর্ষণের মামলা বিবাহিত স্ত্রী অনুশ্রীর

হাজত বাস করতে হয়েছিল ধোয়ারবন্দের যুবক সুদামকে

 কথায় আছে ‘প্রেমের মরা জলে ডুবে না’। তেমনি সত্যিকারের ভালোবাসা কখনো হার মানে না বা হারায় না। সত্যিকারের প্রেমের জয় কোনো না কোনোভাবে হবেই। কিন্তু কাছাড় জেলার ধোয়ারবন্দ অঞ্চলের দক্ষিণ টিলার ২৩ বছরের যুবক সুদাম বাকতির ক্ষেত্রে ঘটনা সম্পূর্ণ বিপরীত। সুদীর্ঘ আনুমানিক ৬ বছরের সত্যিকারের প্রেম ভালোবাসার বিনিময়ে ভালোবাসার অপরাধে ‘অপরাধী’ হয়ে শিলচর সেন্ট্রাল জেলে প্রায় ৩ মাস হাজত বাস করতে হয়েছিল নির্দোষী প্রেমিক সুদামকে। আমাদের দেশে মেয়ে তথা নারীজাতির সুরক্ষার জন্য ওমেন এমপাওয়ারমেন্ট এর মাধ্যমে যে আইন বলবৎ বা সুরক্ষা প্রদান করা হয়েছিল, আজকাল তার অপব্যাবহারও প্রায় চরম সীমায় পৌঁছাচ্ছে। মহিলাদের সুরক্ষা প্রদান ও তাদের সম্মান জানানো টা যতটুকু কর্তব্য পুরুষ জাতির, সেই সম্মান টাকে অটুট রাখার ঠিক ততটুকুই কর্তব্য নারীজাতির।

সম্প্রতি হাজত থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে আসলে গত ১৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে ধোয়ারবন্দের দক্ষিণ টিলার অর্ধশতাধিক পুরুষ ও মহিলারা জড় হয়ে স্বামী সুদাম বাকতি ও তার পরিজনেরা হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে সুদামের বিবাহিত স্ত্রী অনুশ্রী গোয়ালার বিরুদ্ধে এক প্রতিবাদী মিছিল করে ধোয়ারবন্দ বাজার স্থিত থানায় উপস্থিত হন এবং উক্ত থানার বর্তমান ভারপ্রাপ্ত ওসি প্রণব কুমার ডেকা মহাশয়ের সঙ্গে বিগত দিনের প্রেমিক সুদাম বাকতির উপরে আইনিগত ভাবে বিবাহিত স্ত্রী অনুশ্রীর দ্বারা দেওয়া আইপিসির ধারা ৩৮৫/৩৬৬/৩৭৬ অনুযায়ী গত ৩ জুন যে মামলা করা হয়েছিল তার পরিপ্রেক্ষিতে বার্তালাপ করেন ও উক্ত বিষয়টি নিয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের সম্মুখে সুদাম ও অনুশ্রীর যাবতীয় বিবাহ জনিত নথিপত্র তুলে ধরেন। তড়িঘড়ি করে সুদামকে গ্রেফতার করা হয়েছিল বলে জানান। আর সেই মামলার তদন্তকারী অফিসার ছিলেন তৎকালীন ধোয়ারবন্দ থানার বিতর্কিত ওসি মনোজ রাজবংশী। অভিযোগ শুনে আইনের আশ্রয় নিতে পরামর্শ ও সুবিচারের আশ্বাস দেন বর্তমান ওসি। থানার সম্মুখে মাতা দশমী বাকতি, মালা বাউরি, মঙ্গল তাঁতী, সিতা মিশ্রা, বেচন গোয়ালা সবাই একই সুরে সুদাম বাকতির বিরুদ্ধে স্ত্রী অনুশ্রী গোয়ালার দেওয়া অভিযোগ গুলোকে সম্পূর্ণরূপে অনৈতিক অভিযোগ বলে খণ্ডন করেন ও সুদামের ন্যায় বিচারের জন্য সংবাদ মাধ্যমে জেলা প্রশাসনের কাছে আইনি সহায়তা ও সাহায্যের জন্য বিনম্র আবেদন জানান।

উক্তদিনের এই প্রতিবাদী মিছিলে স্থানীয়রা উল্লেখ করেন যে আইনিগত বিবাহ বন্ধনের পর ধোয়ারবন্দ থানায় অনুশ্রীর পরিজন, সুদাম বাকতির পরিজন ও পঞ্চায়েতের সদস্য সহ অন্যান্যদের উপস্থিতিতে অনুশ্রীর স্বইচ্ছায় সুদামের হাতে তার প্রেমিকাকে স্ত্রী স্বীকৃতি দিয়ে তুলে দেওয়া হয়েছিল। তারপর একই সাথে ওরা টানা ১ মাস ঘর সংসার করে এবং তারপরই এই রহস্য জনক ও অবিশ্বাস্য ঘটনাটি ঘটে। এই দিনে উপস্থিত ছিলেন ‘জাস্টিস ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন’ এর সদস্য তথা লেখক ও সাংবাদিক হৃদয় দেবনাথ, সাংবাদিক দীপ দেব, সাংবাদিক আকাশ আলি মজুমদার, সাংবাদিক কুন্তল কুরী, সাংবাদিক জাকির হুসেইন লস্কর ও সাংবাদিক হরিহর ভট্টাচার্য সহ প্রমুখেরা।

LEAVE A COMMENT

Comment